অধ্যায়-২

নেটওয়ার্ক ও এর ব্যবহার


নেটওয়ার্ক : নেটওয়ার্ক হচ্ছে এমন একটি ব্যবস্থা, যা দুই বা তার বেশি কম্পিউটারকে কোনো মাধ্যমে যুক্ত করে তথ্য কিংবা উপাত্ত দেওয়া-নেওয়া করা যায়। নেটওয়ার্কের ব্যবহার : নেটওয়ার্কের সবচেয়ে বড় ব্যবহার হচ্ছে তথ্যকে কার্যকরভাবে ব্যবহার করা। নেটওয়ার্ক দিয়ে তথ্যকে উপস্থাপন করার কারণে এখন মুহূর্তের মধ্যে একটি তথ্য দ্রুত ছড়িয়ে দেওয়া যায়। শুধু তা নয়, সেটি সারা দেশে, এমনকি সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে দেওয়া যায়। তথ্য এখন সবার জন্য উন্মুক্ত। নেটওয়ার্কের অন্য ব্যবহারটি হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তিসংক্রান্ত সব প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার ভাগাভাগি করে নেওয়ার সুযোগ। একসময় সব প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার আলাদাভাবে প্রতিটি কম্পিউটারে রাখা হতো। এখন একটি মূল কম্পিউটারে বা সার্ভারে সেটি রাখা হয় এবং নেটওয়ার্কের মাধ্যমে তা অন্য কম্পিউটারে ব্যবহার করা যায়। শুধু সফটওয়্যার ব্যবহারই নয়, একজন মানুষ তার ব্যক্তিগত সব কিছু্ই নিজের কম্পিউটারে না রেখে অন্য কোথাও রেখে দিতে পারে এবং যেকোনো সময় পৃথিবীর যেকোনো জায়গা থেকে সেটি ব্যবহার করতে পারে । নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সারা পৃথিবীতে সামাজিক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে মানুষের সঙ্গে মানুষের এক ধরনের যোগাযোগ শুরু হয়েছে। নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে আজকাল টেলিফোন, ভিডিওকল, ইমেইল, ছবি, ভিডিও আদান-প্রদান করা হয়। মানুষের বিনোদনের ক্ষেত্রেও নেটওয়ার্কের ব্যবহার অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। রাষ্ট্র পরিচালনা ও নিরাপত্তায়ও নেটওয়ার্ক ব্যবহার হয়।


সামাজিক নেটওয়ার্ক ও এর সুফল, কুফল।


সামাজিক নেটওয়ার্ক বলতে সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইটকে বোঝায়। এ মুহূর্তে পৃথিবীর জনপ্রিয় সামাজিক নেটওয়ার্কের মধ্যে রয়েছে ফেসবুক ও টুইটার। সামাজিক নেটওয়ার্ক ব্যবহারের সুফলের পাশাপাশি কুফলও রয়েছে। নিচে তা বর্ণনা করা হলো:
সুফলগুলো:
১. মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগ বৃদ্ধি।
২. সামাজিক নেটওয়ার্কে একে অন্যের সঙ্গে ছবি, ভিডিও বা তথ্য বিনিময় করতে পারে।
৩. ই-মেইল পাঠাতে পারে বা গ্রহণ করতে পারে, মেসেজ দেওয়া-নেওয়া করতে পারে।
৪. এর মাধ্যমে ভিডিও চ্যাটিং করার ব্যবস্থা আছে।
কুফলগুলো:
১. অধিক পরিমাণে সামাজিক নেটওয়ার্কের ওপর নির্ভরশীলতা সত্যিকারের যোগাযোগের অনুভূতিকে কমিয়ে দিচ্ছে। এর ব্যবহারকারীরা একেই সত্যিকারের সম্পর্ক ভাবতে শুরু করেছে।
২. বাইরে ঘুরে বেড়ানো, খেলাধুলা, মানুষের সঙ্গে মেলামেশার দক্ষতা ও ইচ্ছা কমে যাচ্ছে। এর ফলে মানসিকভাবে হতাশায় ভোগার সম্ভাবনাও দেখা দিতে পারে।


হাব ব্যবহারে সুবিধা ও অসুবিধা


নেটওয়ার্ক ব্যবস্থায় হাব ব্যবহারের সুবিধা এবং অসুবিধাগুলো নিচে দেওয়া হলো।
সুবিধা:
১. বিভিন্ন ধরনের মিডিয়াকে সংযুক্ত করে থাকে।
২. এটি স্বল্পমূল্যে পাওয়া যায়।
৩. হাব ব্যবহারে অল্প পরিসরে ছোট নেটওয়ার্ক তৈরি করা যায়।
অসুবিধা:
১. ডেটা আদান-প্রদানে বাধার সম্ভাবনা থাকে।
২. অনেক ডেটা একসঙ্গে পাঠালে সময় বেশি লাগে।
৩. গতি কম হয়।


নেটওয়ার্ক-সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি


উত্তর : নেটওয়ার্কের কাজের জন্য কিছু যন্ত্রপাতির প্রয়োজন হয় যেমন- হাব, সুইচ, রাউটার, মডেম, ল্যান কার্ড। নিচে এগুলো সম্পর্কে সংক্ষেপে বর্ণনা দেওয়া হলো।
হাব (Hub) : সাধারণত তারযুক্ত নেটওয়ার্কে থাকা অনেক আইসিটি যন্ত্র তথা কম্পিউটারকে একসঙ্গে যুক্ত করতে হাব ব্যবহার করা হয়। হাব এক যন্ত্রকে অন্য যন্ত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করার সুযোগ দেয়। হাব তার সঙ্গে সংযুক্ত সব কম্পিউটারে ওই তথ্য বা উপাত্ত পাঠিয়ে দেয়। হাব নির্দিষ্ট কোনো ঠিকানা অনুযায়ী তথ্য পাঠাতে পারে না। ধীর গতি ও কম সুবিধার কারণে বর্তমানে এর ব্যবহার অনেক কম।
সুইচ (Switch) : এটিও হাবের মতো একটি ক্ষুদ্র আইসিটি যন্ত্র। সুইচ তার সঙ্গে সংযুক্ত প্রতিটি আইসিটি যন্ত্রের একটি করে ঠিকানা বরাদ্দ করে এবং ওই ঠিকানা অনুযায়ী তথ্যের আদান-প্রদান করে। সুইচ অনেক দ্রুত গতিতে কাজ করতে পারে। এ জন্য নেটওয়ার্ক তৈরিতে সুইচই এখন সবার পছন্দ।
রাউটার (Router) : রাউটার একটি যন্ত্র, যা হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারের সমন্বয়ে তৈরি। রাউটারের প্রধান কাজ ডাটা বা উপাত্তকে পথনির্দেশনা দেওয়া। একই প্রটোকলের অধীনে দুটি নেটওয়ার্ককে সংযুক্ত করার জন্য রাউটার ব্যবহার করা হয়।
মডেম (Modem) : কম্পিউটারকে ইন্টারনেট নেটওয়ার্কে যুক্ত করার জন্য মডেম ব্যবহার করা হয়। মডেম তারসহ অথবা তারবিহীন প্রযুক্তিতে ব্যবহৃত হতে পারে। মডেম এমন একটি যন্ত্র, যা কম্পিউটার থেকে প্রাপ্ত ডিজিটাল সিগন্যালকে অ্যানালগ সিগন্যালে রূপান্তরিত করে প্রেরণ করে আবার নেটওয়ার্ক থেকে প্রাপ্ত অ্যানালগ সিগন্যালকে ডিজিটাল সিগন্যালে পরিণত করে।
ল্যান কার্ড (LAN Card) : দুই বা অধিকসংখ্যক কম্পিউটারকে একসঙ্গে যুক্ত করতে যে যন্ত্রটি অবশ্যই প্রয়োজন হয় তা হলো ল্যান কার্ড। বর্তমানে সব কম্পিউটার ও ল্যাপটপে আইসিটি যন্ত্রের সঙ্গে ল্যান কার্ড সংযুক্ত অবস্থায় থাকে। প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে এখন তারবিহীন ল্যান কার্ডই সবার পছন্দ।